এবার চিনিতে বেজায় আগুন

0
6

সর্বশেষ আপডেট আগস্ট ২৪, ২০২১ | ইমরান

নাগালের বাইরে চলে যাচ্ছে চিনির দামও। খুচরা বাজারে প্রতি কেজি খোলা চিনির দাম ৪ থেকে ৫ টাকা বেড়ে এখন ৭৮ থেকে ৮০ টাকায় দাঁড়িয়েছে।

প্যাকেটজাত চিনি প্রতি কেজি ৮৪ টাকা চাইছেন বিক্রেতারা।

সরকারি সংস্থা ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) বাজারদরের তালিকা অনুযায়ী, বাজারে চিনির কেজি এখন ৭৫ থেকে ৮০ টাকা। গত বছর এ সময়ে একই চিনি কেজিপ্রতি ৫৮ থেকে ৬৫ টাকা ছিল।

এক বছরে পণ্যটির দাম বেড়েছে প্রায় ২৬ শতাংশ।

চিনি আমদানিকারক ও পাইকারি ব্যবসায়ীরা বলছেন, বিশ্ববাজারে অস্থিরতার কারণে চিনির দাম বাড়ছে। আর দর এত বেশি হওয়ার আরেকটি কারণ উচ্চ করহার।

বিক্রেতারা বলছেন, বিশ্ববাজারে দাম বাড়লেও নতুন দরের চিনি এখনও দেশে আসেনি। আন্তর্জাতিক বাজারে দাম বাড়ার সুযোগ নিয়ে ব্যবসায়ীরা আগে কেনা চিনিই বেশি দামে বিক্রি করছেন।

কারওয়ান বাজারে প্রতি বস্তা (৫০ কেজি) চিনি ৩ হাজার ৬৫০ থেকে ৩ হাজার ৭০০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা যায়, প্রতি কেজি ৭৩-৭৪ টাকা।

দেশে বছরে ১৪ লাখ টনের মতো পরিশোধিত চিনির চাহিদা রয়েছে। এর প্রায় পুরোটাই আমদানি করতে হয়। পাঁচ থেকে ছয়টি প্রতিষ্ঠান অপরিশোধিত চিনি আমদানি করে তা পরিশোধনের পর বাজারে ছাড়ে।

২০১৯-২০ অর্থবছরের বাজেটে অপরিশোধিত চিনির টনপ্রতি আমদানি শুল্ক ২ হাজার থেকে বাড়িয়ে ৩ হাজার টাকা করা হয়। আবার নিয়ন্ত্রণমূলক শুল্ক ১০ শতাংশ বাড়িয়ে করা হয় ৩০ শতাংশ।

আমদানি পর্যায়ে ৫ শতাংশ করে অগ্রিম কর (এটি) ও অগ্রিম আয়কর (এআইটি) আরোপ করা হয়। চিনির করকাঠামো এমন যে বিশ্ববাজারে দাম বাড়লে আমদানিতে কর বেড়ে যায়।

ইন্টারন্যাশনাল সুগার অর্গানাইজেশনের (আইএসও) ওয়েবসাইটে দেয়া তালিকা অনুযায়ী, চলতি বছরের শুরু থেকেই সাদা চিনির টনপ্রতি দর ৪৫০ ডলারের আশপাশে ছিল। গত কয়েক দিনে তা ৫০০ ডলার ছাড়িয়ে যায়।

মৌলভীবাজার ব্যবসায়ী সমিতির সাধারণ সম্পাদক গোলাম মাওলা বলেন, পাইকারি বাজারে সোমবার (২৩ আগস্ট) চিনির দাম ছিল প্রতি কেজি ৭৪ টাকা।

সিটি গ্রুপের পরিচালক বিশ্বজিৎ সাহা বলেন, প্রতি কেজি চিনিতে এখন ২৮ টাকার মতো কর দিতে হয়।

পূর্ববর্তী সংবাদঢাকায় পা রাখল নিউজিল্যান্ড দল
পরবর্তী সংবাদশিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার বিষয়ে কী বলছেন শিক্ষামন্ত্রী

উত্তর দিন

আপনার মন্তব্য লিখুন!
এখানে আপনার নাম লিখুন